দুর্গাপুরে ব্যান্ড রোল কড় ফাঁকির দায়ে বিড়ি ব্যবসায়ী আটক

দুর্গাপুরে ব্যান্ড রোল কড় ফাঁকির দায়ে বিড়ি ব্যবসায়ী আটক

দুর্গাপুর প্রতিনিধি ঃ নেত্রকোনার দুর্গাপুরে বিড়ির ব্যান্ড রোলের মাধ্যমে সরকারী কর ফাঁকি দেয়ায় ইসমাইল মিয়া (১৮) নামে এক বিড়ি ব্যবসায়ীকে আটক করা হয়েছে। বৃহস্পতিবার দুুপুরে উপজেলার ঠাকুরবাড়ী কান্দা গ্রামে ভ্রাম্যমান আদালতের মাধ্যমে এ অভিযান চালানো হয়।

    সরেজমিনে গিয়ে দেখা গেছে, নেত্রকোনা জেলার নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট নারায়ন চন্দ্র বর্ম্মন এর নেতৃত্বে গোপন সংবাদের ভিত্তিতে ওই গ্রামের সিরাজুল মিয়ার বাড়ীতে অভিযান চালিয়ে নকল ব্যান্ড রোলে মোড়ানো প্রায় ৬বস্তা দয়াল বিড়ি আটক করেন। এ সময় অন্যান্য সহযোগিরা পালিয়ে গেলেও সিরাজুল মিয়ার ছেলে ইসমাইল মিয়া কে আটক করে ৫০হাজার টাকা জরিমানা ও ১৫দিনের বিনাশ্রম কারাদন্ড প্রদান করেন। এছাড়া দুর্গাপুর পৌর শহর ও অন্যান্য বাজার গুলোতে এ অভিযান চালিয়ে জরিমানা আদায় করা হয়।

    সরকারের বেঁধে দেয়া এক প্যাকেট বিড়ির মূল্য ১২.৫০ পয়সা নির্ধারণ হলেও তারা কর ফাঁকি দিয়ে প্রতি বিড়ির প্যাকেট ৭ থেকে ৮ টাকায় বিক্রি করছে। দেশে তামাকজাত পণ্য উৎপাদনকে নিরুৎসাহিত করতে এ শিল্পের পণ্যের উপর প্রতি বছরই করারোপ বৃদ্ধি করায় বিড়ির উৎপাদন খরচের পাশাপাশি ভ্যাট-ট্যাক্সও বেড়ে যায়। তার পরেও ক্যাসিনো স্টাইলে অসাধু ব্যবসায়ীরা হাতিয়ে নিচ্ছে কোটি কোটি টাকা। সরকারী কর ফাঁকির মাধ্যমে নকল ব্যান্ডরোল দিয়ে নিম্নমানের বিড়ি বানিয়ে দিব্যি ব্যবসা করে যাচ্ছে দেশের বিভিন্ন এলাকায়। এতে করে একদিকে যেমন সরকার কোটি কোটি টাকা রাজস্ব আয় থেকে বঞ্চিত হচ্ছে। অপরদিকে এলাকার হতদরিদ্র কৃষক, খেটে খাওয়া মানুষ নিম্নমানের বিড়ি পান করে শ্বাসকষ্ট, ক্যানসার রোগে আক্রান্ত হচ্ছে।

    এ ব্যাপারে নেত্রকোনা জেলা নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট নারায়ন চন্দ্র বর্ম্মন বলেন, নকল ব্যান্ড রোল দিয়ে বিড়ি বাজারজাত করণের বিষয়টি সত্য। ইতিপূর্বে আমরা বিভিন্ন এলাকায় অভিযান পরিচালনা করে নকল ব্যান্ডরোল বিড়ি উদ্ধার করেছি। এ ব্যাপারে বেশ কয়েকটি মামলাও হয়েছে। এ নিয়ে আমাদের অভিযান অব্যাহত থাকবে।