দুর্গাপুরে নাবালিকা ধর্ষন লোকলজ্জায় বিষপানে মৃত্যু

দুর্গাপুরে নাবালিকা ধর্ষন লোকলজ্জায় বিষপানে মৃত্যু

তোবারক হোসেন খোকন, দুর্গাপুর : জেলার দুর্গাপুরে বিয়ের প্রলোভনে এক কিশোরী (১৬) কে ধর্ষন করার খবর পাওয়া গেছে। দুর্গাপুর সদর ইউনিয়নের মাসকান্দা গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। নির্যাতনের এক পর্যায়ে লোকলজ্জার ভয়ে বুধবার সকালে বিষপানে আত্মহত্যা করে ওই কিশোরী।

    এ নিয়ে বৃহস্পতিবার দুপুরে নিহতের ভাই ও এলাকাবাসী সাংবাদিকদের জানান, একই গ্রামের মো. আব্দুল মিয়ার মেয়ের সাথে আব্দুল জলিলের পুত্র মো. অলি মিয়া দীর্ঘদিন প্রেমের সম্পর্ক গড়ে ওঠে। ওই সম্পর্কের জেরে বেশ কিছুদিন শারিরীক সম্পর্ক গড়ে তোলে অলি মিয়া। এরই প্রেক্ষিতে গত শুক্রবার সন্ধ্যায় ওই মেয়েকে বিয়ের প্রলোভনে ওলি মিয়া তার বাড়ীতে নিয়ে রাতভর ধর্ষন করে। পরদিন সকালে ছেলের বাবা মা বিষয়টি জানতে পেরে মেয়েকে তাদের বাড়ী চলে যাওয়ার জন্য চাপসৃষ্টি করে। পরবর্তিতে স্থানীয় ইউপি সদস্য মো. ছোবান মিয়া সহ ছেলের বাবা মায়ের উপস্থিতিতে মেয়ে তাদের সম্পর্কের কথা জানায়। ওই কথা শুনে মেয়েকে ওলির বাবা মা মিলে বেদম প্রহার করে ওই মেম্বারের হাতে তুলে দিলে মেয়ে তার পিতার কাছে বুঝিয়ে দেয়। ইতোমধ্যে ছেলে ওই মেয়ের সাথে কোন যোগাযোগ না করায় অভিমানে বুধবার সকালে ঘরের দরজা বন্ধ করে বিষপান করে। বেশকিছুক্ষণ দরজা বন্ধ থাকায় ঐ ঘর থেকে মেয়েকে উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স এ ভর্তি করলে অবস্থার অবনতি হওয়ায় বুধবার রাতে উন্নত চিকিৎসার জন্য ময়মনসিংহ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করেন। বৃহস্পতিবার সকাল ১১.৩০মিনিটে ওই নাবালিকা মেয়ে মৃত্যুর সাথে পাঞ্জালড়ে শেষ নিঃশ^াস ত্যাগ করে।    

    কিশোরী মৃত্যুর খবর পেয়ে অভিযুক্ত অলি মিয়া ও তার পরিবার গা ঢাকা দিয়েছে। তাদের মুঠোফোনে বার বার চেষ্টা করেও কোন মন্তব্য পাওয়া যায়নি।

    নিহতের ভাই তোফায়েল মিয়া বলেন, আমরা ৩ ভাই এক বোন, আমাদের আদরের ছোটবোনের সাথে যারা এমন আচরন করেছে, আমি তাঁদের দৃষ্টান্ত মুলক শাস্তি দাবী করছি। আমাদের একমাত্র ছোট বোনকে হারিয়ে আমরা নির্বাক হয়ে গেছি।

    এ নিয়ে দুর্গাপুর থানার অফিসার্স ইনচার্জ মিজানুর রহমান বলেন, এখ নপর্যন্ত কোন অভিযোগ পাইনি, অভিযোগ পেলে অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে দ্রæত ব্যবস্থা গ্রহন করবো।