পাল্টে গেছে নেত্রকোনা মডেল থানার দৃশ্যপট

পাল্টে গেছে নেত্রকোনা মডেল থানার দৃশ্যপট

এ কে এম আব্দুল্লাহ্, নেত্রকোনা ঃ ‘মুজিব বর্ষের অঙ্গীকার, পুলিশ হবে জনতার’ এই ¯েøাগানকে সামনে রেখে ডিজিটাল পুলিশী সেবা সাধারণ জনগণের দোড়গোড়ায় পৌঁছে দিতে নেত্রকোণা মডেল থানা দৃশ্যমান কার্যক্রম বাস্তবায়ন করেছে। 
      বিগত দিনগুলিতে থানায় এসে  সাধারণ জনগণকে পুলিশী সেবা পেতে নানা ধরনের হয়রানি ও বিড়ম্বনার  শিকার হতে হয়েছে। বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা মুজিব বর্ষ উপলক্ষে পুলিশকে জনবান্ধবসহ       ডিজিটালাইজেশন করতে যে কার্যক্রম হাতে নিয়েছে, সেই কার্যক্রমকে বাস্তবায়নের লক্ষ্যে নেত্রকোনা মডেল থানা সেবা প্রার্থীদের দুর্ভোগ ও হয়রানি লাঘবে ‘ডিজিটাল কিউ’ মেশিনের মাধ্যমে দ্রæততম সময়ে সর্বোত্তম সেবা সার্ভিস চালু করেছে। এই সেবা সার্ভিস কেন্দ্রের অন্যতম বৈশিষ্ট্য হলো সেবা প্রার্থীরা এক জায়গা থেকেই সহজে যে কোন ধরণের অভিযোগ, জিডি ও মামলা করার কাজ সম্পন্ন করতে পারছে। থানায় সেবা নিতে আগ্রহী যে কোন ব্যাক্তি থানার প্রবেশদারে পৌঁছা মাত্রই দায়িত্বরত পুলিশ সিটিজেন চার্টার অনুযায়ী সালাম জানিয়ে বিনয়ের সহিত কি কাজে এসেছেন জানতে চান, পরে তিনি ডিজিটাল কিউ মেশিনের মাধ্যমে সিরিয়াল নিয়ে, সিরিয়াল অনুযায়ী প্রয়োজনীয় ডেস্ক থেকে সেবা পাচ্ছেন। থানায় স্বল্প সময়ে জিডি করণের লক্ষে জিডি ফরমেট তৈরি করা হয়েছে, এই ফরমেট ব্যবহার করে জিডি করতে আসা লোকজন কোন হয়রানি ছাড়াই বিনামূল্যে দুই মিনিটের মধ্যে জিডি করতে পারছে। এছাড়াও নেত্রকোনা মডেল থানায় স¤প্রতি হেল্প ডেস্ক, নারী ও শিশু নির্যাতন এবং প্রতিবন্ধী সহায়তা ডেস্ক চালু করা হয়েছে। সেবা প্রার্থীরা সেখান থেকে প্রয়োজনীয় সেবা পাচ্ছেন। 
       এ ব্যাপারে নেত্রকোনা মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ তাজুল ইসলামের সাথে কথা বললে তিনি এই প্রতিবেদককে জানান, আমি যখন প্রথম এই মডেল থানায় যোগদান করি, তখন এটি নামে মাত্র মডেল থানা ছিল। থানার বারান্দায় একটি ছোট্ট কক্ষে বসে আমাকে দায়িত্ব পালন করতে হয়েছিল। সেখানে সেবা প্রার্থীদের বসে কথা বলার কোন জায়গা ছিল না। পরে আমি ময়মনসিংহ রেঞ্জের ডিআইজি ব্যারিষ্টার হারুন অর রশিদ ও নেত্রকোনার পুলিশ সুপার আকবর আলী মুনসী স্যারের সাথে কথা বলে উনাদের দিক নির্দেশনায় ওসির কক্ষটি প্রশস্ত করণসহ থানার পরিবেশ সুন্দর্য্য বর্ধনের কার্যকর উদ্যোগ গ্রহন করি। 
          ইতিমধ্যে সরকারের নির্দেশনায় থানায় সেবা নিতে আগত লোকজনকে দ্রæত সেবা প্রদান ও ডিজিটাল বাংলাদেশ বিনির্মাণের লক্ষ্যে থানায় কর্মরত পুলিশ কর্মকর্তাদের কম্পিউটার প্রশিক্ষণ দেয়ার পাশাপাশি প্রয়োজনীয় কম্পিউটার ও ল্যাপটপ স্থাপন করা হয়েছে। তিনি আরও বলেন, মোটর সাইকেল রাখার জন্য একটি গ্যারেজ এবং থানায় অবস্থানরত পুলিশ সদস্যদের মানসম্মত পরিবেশে খাবার খাওয়ার জন্য ডাইনিং রুম নির্মাণ করা হয়েছে। থানার পেছনে গজিয়ে উঠা ঝোপঝাড় কেটে ও ছোট-বড় গর্ত বালি দিয়ে ভরাট করে সেখানে খেলার মাঠ ও ফুলের বাগান তৈরি করা হয়েছে। তিনি কতিপয় টাউট বাটপার ও দালালদের কথায় বিভ্রান্ত না হয়ে অসহায়, বিপদ ও ক্ষতিগ্রস্থ জনগণকে সরাসরি থানায় এসে প্রয়োজনীয় পরামর্শ ও আইনী সেবা গ্রহণের অনুরোধ জানান।