কলমাকান্দায় স্থাপনকৃত টিউবওয়েলে আগুন             ৩ ঘন্টার চেষ্টায় নিয়ন্ত্রণে, এলাকায় আতংক

কলমাকান্দায় স্থাপনকৃত টিউবওয়েলে আগুন             ৩ ঘন্টার চেষ্টায় নিয়ন্ত্রণে, এলাকায় আতংক

শেখ শামীম, স্টাফ রিপোর্টার : নেত্রকোণার কলমাকান্দায় নতুন স্থাপনকৃত টিউবওলে আগুন লাগার ঘটনা ঘটেছে। প্রথমে ৩৫-৪০ ফুট  উচ্চতায় আগুন জ্বলতে থাকলে স্থানীয়রা আশপাশের গাছের ডালপালা কেটে পানি ও বালুর বস্তা দিয়ে চাপা দেয়। এতে আগুন না নিভে ১০-১২ ফুট উচ্চতায় জ্বলতে থাকে। ঘটনাস্থলের পাশে রয়েছে মসজিদ, মক্তব , ৩/৪টি দোকান ঘর সহ বেশ কয়েকটি বসত বাড়ি। ৩ ঘন্টার চেষ্টায় আগুন নিয়ন্ত্রণে এলেও এ প্রতিবেদন লেখা পযস্ত টিউবওয়েলে গোড়া দিয়ে গ্যাসের চাপে এখনও পানি বের হচ্ছে। এ কারণে ওই এলাকার বাসিন্দাদের মধ্যে আগুন  আতংক বিরাজ করছে বলে জানা গেছে।

গত শনিবার সন্ধ্যায় আগে উপজেলার লেংগুরা ইউনিয়নের সীমান্তবর্তী  জিগাতলা গ্রামের পূর্ব জিগাতলা জামে মসজিদের স্থাপনকৃত টিউবওয়েলে আগুন লাগার এ ঘটনাটি ঘটে।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, পূর্ব জিগাতলা মসজিদের টিউবওয়েল দিনের বেলায় বরিং করে সন্ধ্যার আগে ৭০ ফুট গভীরতায় পানির লেয়ার পাওয়া যায়। বরিংয়ে পাইপ স্থাপন পর টিউবওয়েল স্থাপন শেষ সম্পন্ন হয়। পানি উত্তোলনের জন্য টিউবওয়েল চাপ না দিতেই  পানি বের হতে থাকে।  এ সময় স্থানীয় ইউপি সদস্য মো. আকবর কবীর স্থাপনকারীদের বলে গ্যাসের চাপের কারণে এটি হচ্ছে। তার নির্দেশে কল স্থাপনকারী মেকানিকরা কাজ বন্ধ করে টিউবওয়েল হাতল বেঁধে রেখে চলে আসে। এরপর সন্ধ্যার দিকে কে বা কাহারা কোন কিছুর সাহায্যে আগুন দেয়। সাথে সাথে আগুনের শিখা প্রায় ৩৫-৪০ ফুট উচ্চতায় জ্বলতে থাকে। স্থানীয়রা দ্রæত আশপাশে গাছের ডাল পালা কেটে পানি ও বালুর বস্তা দিয়ে চাপা দিলেও পরে তা ভেদ করেও আগুন ১০-১২ ফুট উচ্চতায় জ্বলতে থাকে। খবর পেয়ে ফায়ার সার্ভিসের একটি ঘটনা স্থলে পৌছার আগেই কয়েক ঘন্টা একই উচ্চতায় জ্বলতে থাকে বলে জানান ইউপি সদস্য মো. আকবর কবীর। পরে ঘটনাস্থলে কলমাকান্দা ফায়ার সার্ভিসের স্টেশনের লিডার মো. আব্দুল কাদির নেতৃত্বে একটি দল ৩ ঘন্টার চেষ্টায় রাত সাড়ে  ১০টার দিকে আগুন নিভাতে সক্ষম হন।

কলমাকান্দা ফায়ার সার্ভিসের স্টেশন লিডার মো. আ. কাদির ইক্রা প্রতিদিনকে বলেন, খবর পেয়ে দুর্গম এলাকায় আসতে বেগ পেতে হয়েছে। পথের মধ্যে খালে সাঁকুর থাকায় ফায়ার সার্ভিসের গাড়ী রাস্তায় রেখে ঘটনাস্থলে প্রায় তিন কি.মি. হেঁটে আসতে হয়েছে। পরে তিন ঘন্টার প্রচেষ্টায় জীবনের ঝুঁকি নিয়ে রাত সাড়ে ১০টার দিকে আগুন নিয়ন্ত্রণে আনতে পেরেছি। তবে স্থানীয় ইউনিয়ন চেয়ারম্যান ও মেম্বার কারো সহায়তা পাননি বলে জানান ফায়ার সার্ভিসের এই লিডার।

স্থানীয় ইউপির চেয়ারম্যান মো. সাইদুর রহমান ভূইয়া ইক্রা প্রতিদিনকে জানান, ফায়ার সার্ভিসের একটি  দল আগুন নিয়ন্ত্রণ করে ঘটনাস্থল থেকে  রাতেই চলে যান। এখনও পর্যন্ত্য টিউবওয়েলে গোড়া দিয়ে গ্যাসের চাপে এখনও পানি বের হচ্ছে। এ কারণে ওই এলাকার বাসিন্দাদের মধ্যে আগুন  আতংক বিরাজ করছে। এলাকাবাসীদের খুব সতর্কতার সহিত থাকতে বলা হয়েছে।