ঈদে বেড়াতে এসে নেত্রকোনার কেন্দুয়ায় গণধর্ষণের শিকার এক গার্মেন্টস কর্মী

ঈদে বেড়াতে এসে নেত্রকোনার কেন্দুয়ায় গণধর্ষণের শিকার এক গার্মেন্টস কর্মী

এ কে এম আব্দুল্লাহ, নেত্রকোনা ঃ ঈদে নিজ বাড়ি বেড়াতে এসে কথিত প্রেমিকের সাথে বেড়াতে গিয়ে গণধর্ষনের শিকার হয়েছে এক গামেন্টর্স কর্মী। ধর্ষিতা এ ব্যাপারে শুক্রবার দুপুরে মামলা দায়ের করলে পুলিশ ভিকটিমকে ডাক্তারী পরীক্ষার জন্য নেত্রকোনা আধুনিক সদর হাসপাতালে প্রেরণ করে। ঘটনাটি ঘটেছে গত বৃহস্পতিবার রাতে কেন্দুয়া-মদন সড়কের গুগবাজার এলাকার শাপলা ইট খলা নামক স্থানে।
    পুলিশ ও ভিকটিম সূত্রে জানা গেছে, কেন্দুয়া উপজেলার মাস্কা গ্রামের উক্ত নারী গামেন্টর্স কর্মী সাথে পাশ^বর্তী মদন উপজেলার জাওলা গ্রামের সুমন নামে এক পুরুষ গামেন্টর্স কর্মী গাজীপুরস্থ একটি সোয়েটার কোম্পানিতে একসাথে চাকুরী করে আসছিল। তারা দুজনেই বিবাহিত হওয়ার পরও একই জেলার সুবাদে তাদের সাথে পরিচয় ও সখ্যতা গড়ে উঠে। ঈদের ছুটিতে তারা দুজনই নিজ নিজ বাড়িতে বেড়াতে আসে। ঈদের পরদিন বৃহস্পতিবার বিকালে সুমন জাওলা থেকে মোটর সাইকেলে মাস্কায় এসে নারী গামেন্টর্সকর্মীকে তাদের বাড়ীতে বেড়াতে নিয়ে যাওয়ার কথা বলে তুলে নেয়। মোটর সাইকেলে বিভিন্ন স্থানে ঘুরাঘুরি করে সন্ধ্যার পর গুগবাজার এলাকার শাপলা ইট খলার সামনে এসে গাড়ী নষ্ট হয়ে গেছে বলে নারী গামেন্টর্স কর্মীকে গাড়ী থেকে নামতে বলে। সে গাড়ী টিক করার কথা বলে কাকে যেনো মোবাইল করে। এ সময় ইটখলার ভেতর থেকে তিন যুবক এসে সুমন ও নারী গামেন্টর্সকর্মীকে ইটখলার ভেতরে নিয়ে গিয়ে সুমনের হাত বেঁধে নারী কর্মীকে তিন যুবক পালাক্রমে গণধর্ষণ করে। এরপর মেয়েটিকে একা ফেলে রেখে ওই তিন যুবকসহ সুমনও মোটর সাইকেল নিয়ে ঘটনাস্থল থেকে উধাও হয়ে যায়। এরপর ধর্ষিতা কোন রকমে সেখান থেকে এসে কেন্দুয়া থানায় বিষয়টি জানায় এবং শুক্রবার দুপুরে এ ব্যপারে মামলা দায়ের করে।  
    এ ব্যাপারে সহকারী পুলিশ সুপার (কেন্দুয়া সার্কেল) মাহমুদুল হাসানের সাথে যোগাযোগ করলে তিনি ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, এ ব্যাপারে তদন্ত চলছে। এ ঘটনায় যারাই জড়িত তাদের খোঁজে বের করে দৃষ্টান্ত মূলক শাস্তির মুখোমুখি করা হবে।